ব্রেকিং নিউজ
Home / নন ক্যাডার জব প্রস্তুতি / ফোর জি ও বাংলাদেশ কথন
ফোর জি ও বাংলাদেশ কথন

ফোর জি ও বাংলাদেশ কথন


ফোর জি ও বাংলাদেশ কথন

২০ফেব্রু , ২০১৮ থেকে দেশে চালু হতে যাচ্ছে ফোর জি। বিশ্বে ফোর জি প্রযুক্তি চালু হওয়ার নয় বছর পর বাংলাদেশে আসতে যাচ্ছে ফোর জি। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াসহ প্রায় সব উন্নয়নশীল দেশেই ফোর-জি সেবা চালু আছে।এদিক থেকে কিছুটা দেরিতেই ফোর জি আসছে দেশে। ভারত পাকিস্তানের কথা বাদ। মিয়ানমারের জনগণও ফোর জি সেবা গ্রহণ করছে আগে থেকেই। প্রথম দিকে ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে ফোর জি সেবা দেয়া হবে।তথ্যমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের মতে আগামী ১ বছরের মধ্যে দেশের জেলা ও বিভাগীয় শহরে ফোর জি সেবা চালু হবে আর ৩৬ মাসের মধ্যে সারা দেশে ।

→ফোর জি কী?
এককথায় ফোর জি ইন্টারনেট বাসের ব্যাপক প্রশস্ততা । এর মাধ্যমে ইন্টারনেট এক্সপ্রেসওয়েতে উঠে যায় !
মোবাইল টেলিকমিউনিকেশনের সর্বাধুনিক সংস্করন ফোর-জি (4G-Fourth Generation)। এটি সম্পূর্নরূপে ইন্টারনেট প্রটোকলভিত্তিক একটি টেলিকমিউনিকেশন সিস্টেম যা গ্রাহককে Ultra-broadband mobile internet access প্রদান করে থাকে। ফোর-জি প্রযুক্তি হচ্ছে থ্রিজি মোবাইলের আধুনিকতর সংস্করন। এই প্রযুক্তি এখনও গ্রাহক পর্যায়ে সহজলভ্য হয়ে উঠেনি। ফোরজি মোবাইলের পুরোপুরি বাণিজ্যিক উৎপাদন ও বিপনন শুরু হলে তথ্যপ্রযুক্তি ও টেলিকমিউনিকেশন সিস্টেমে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।
ফোর জি হল প্রচলিত থ্রিজির চেয়ে ফোর জি অনেক দ্রুতগতির। এ প্রযুক্তিতে ডেটা স্থানান্তরের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের ল্যাগ হয় না। কোনো রকম বাফারিং ছাড়াই টিভি ও লাইভ স্টিমিং দেখতে পারেন গ্রাহক। মোবাইল ফোন অপারেটররা দেশে চতুর্থ প্রজন্মের (ফোর জি) সেবা দেওয়ার প্রস্তুতি শুরু করেছে।

 

→ফোর জি’র বৈশিষ্ট্য
২০০৮ সালের মার্চ মাসে International Telecommunications Union Radio communication sector (ITU-R), ফোর-জি প্রযুক্তির ক্ষেত্রে কিছু নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য বাধ্যতামূলক হিসাবে নির্ধারণ করে দেয় যা International Mobile Telecommunications Advanced (IMT-Advanced) specification নামে পরিচিত।
ফোর-জি মোবাইলের অপরিহার্য বৈশিষ্টগুলো হচ্ছে:
১।ডাটা ট্রান্সফারের গতি High mobility station (যেমন, ট্রেন, বাস ইত্যাদি) এবং Low mobility station (যেমন, পথচারী, indoor ইত্যাদি) এর ক্ষেত্রে যথাক্রমে ন্যূনতম ১০০ মেগাবাইট/ সেকেন্ড এবং ১ গিগাবাইট/ সেকেন্ড হতে হবে।
২।এই প্রযুক্তির ডাটা ট্রান্সফার পুরোপুরি ইন্টারনেট প্রটোকল প্যাকেট সুইচ নেটওয়ার্ক ভিত্তিক হতে হবে।
৩।একই স্পেকট্রাম থেকে সর্বাধিক সংখ্যক গ্রাহককে সেবা দিতে হবে।
৪।পরিমাপ যোগ্য Clannel Band width ন্যূনতম ৫-২০ মেগাহার্জ এবং ক্ষেত্রবিশেষ ৪০ মেগাহার্জ পর্যন্ত হবে।
৫।Downlink এর ক্ষেত্রে link spectral Efficiency 15bit/s/Hz এবং Uplink এর ক্ষেত্রে 6.75 bit/s/Hz হতে হবে।
এই সবগুলো বৈশিষ্ট্যই শুধুমাত্র LTE Advanced (Standardized by 3GPP) এবং 802.16m (standardized by the IEEE) এই দু’টি প্রযুক্তির মাধ্যমে কাজ করবে।

→ফোর জি-এর কিভাবে কাজ করে?
বর্তমানে দুটি ফোর-জি স্ট্যান্ডার্ড বাণিজ্যিকভাবে ফোর জি মোবাইলের সাথে যুক্ত আছে। এর মধ্যে Mobile Wimax ২০০৬ সনে দক্ষিণ কোরিয়ায় সর্বপ্রথম এবং Long Term Evolution (LTE) স্ক্যান্ডিনেভিয়ান অঞ্চলে ২০০৯ সাল থেকে অপারেশন শুরু করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে Sprint Nextel ২০০৮ সালে Mobile Wimax চালু করে এবং Metro PCS ২০১০ সালে LTE সার্ভিস শুরু করে। শুরু থেকেই ফোর-জি প্রযুক্তির USB Wireless Modem প্রচলিত ছিল তবে ২০১০ সালে সর্বপ্রথম ওয়াইম্যাক্স স্মার্টফোন এবং ২০১১ সালে LTE স্মার্টফোন বাজারে আসে। এখন পর্যন্ত ফোরজি মোবাইল গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের উপর নির্ভরশীল।

ফোর জি মোবাইল ব্যবহার কেন করবেন?
ফোর জি মোবাইলে রয়েছে সর্বোচ্চ গতির ডাটা ট্রান্সফারের সুবিধা। এই প্রযুক্তিতে গ্রাহক সর্বদাই মোবাইল অনলাইন ব্রডব্যান্ডের আওতায় থাকতে সমর্থ হবেন। এতে হাই ডেফিনেশন টেলিভিশন এবং ভিডিও কনফারেন্সের সুবিধা পাওয়া যাবে। এই প্রযুক্তিতে গ্রাহকের কথোপকথন ও ডাটা ট্রান্সফারের নিরাপত্তা অনেক বেশী শক্তিশালী হবে। ফোর-জি মোবাইল গ্রাহককে ভয়েস মেসেজ, ফ্যাক্স, মাল্টিমিডিয়া মেসেজ, অডিও ভিডিও রেকর্ডিং ইত্যাদির সুবিধাও প্রদান করবে।

বাংলাদেশে থ্রি জি বনাম ফোর জি
১।দেশে এখন থ্রিজি প্রযুক্তির ইন্টারনেটের গড় গতি ৩ দশমিক ৭৫ এমবিপিএস । ফোর জি তে সেটি ২০ এমবিপিএস হবে । এক জিবি’র একটি ফাইল ডাউনলোড করতে গ্রহণযোগ্য থ্রিজি নেটওয়ার্ক পরিস্থিতিতে যেখানে ২০ মিনিট লাগছে, একই রকম পরিস্থিতিতে ফোরজিতে সেটি সম্ভব হবে পাঁচ থেকে ছয় মিনিটে।
২। থ্রি জিতে অনলাইনে মুভি দেখছেন, বাফারিংয়ের বিরক্তি! সেটি দূর হয়ে যাবে ফোরজিতে ল্যাটেন্সি অনেক ভালো হওয়ার কারণে। একইভাবে অনলাইনে ক্লাস করছেন বা ই-মেডিসিনে স্বাস্থ্য সেবা নিচ্ছেন সেখানেও পাবেন বাধাহীন সেবা।
৩।বাংলাদেশে থ্রিজি প্রযুক্তির আরেকটি বড় বাধা- এখানে এই সেবা প্রযুক্তি স্পেকট্রামের যে ব্যান্ডে দেওয়া হয়েছে (২১০০ ব্যান্ড) তার বড় দুর্বলতা হলো এটি পাশাপাশি উঁচু ভবন থাকলে বেজ স্টেশন বা টাওয়ারের মাঝে এক ধরনের প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়ে যায়। তাই নেটওয়ার্ক ভালো পাওয়া যায় না। ফলে শহরের বড় বড় ভবনের অলি-গলিতে নেটওয়ার্কও ভালো মেলে না।ফোর জিতে এটি থাকবে না । ফোরজিতে এখানেই সবচেয়ে বড় অগ্রগতি হবে। কারণ, অপারেটররা যে কোনো ব্যান্ডেই ফোরজি সেবা দিতে পারবেন। ফলে ভালো নেটওয়ার্কের বড় অগ্রগতি হবে এর মাধ্যমে। কথা বলা এবং ইন্টারনেট ব্যবহার– দুই ক্ষেত্রেই তা হবে।
.
৪।টেলিকমিউনিকেশন্সে ‘টেকনোলজিক্যাল নিউট্রালিটি’ বলে একটি টার্ম আছে। যার মানে দাঁড়ায় যে কোনো স্পেকট্রাম ব্যান্ডে যে কোনো সেবা দেওয়ার সুযোগ। বাংলাদেশে এতোদিন এটি ছিলো না। গত ১৩ ফেব্রুয়ারি স্পেকট্রাম নিলামের সময় থেকে এটি উন্মুক্ত করা হয়েছে। ফলে একে তো অপারেটর তার হাতে থাকা স্পেকট্রাম দিয়ে ইচ্ছে মতো নেটওয়ার্কের ডিজাইন করতে পারবেন; দ্বিতীয়ত, টেকনোলজিক্যাল নিউট্রালিটি এমনিতেই স্পেকট্রামের ইফিসিয়েন্সি বা কার্যক্ষমতা দেড় থেকে দুইগুণ পর্যন্ত বাড়িয়ে দিবে। এতে করে বিদ্যমান স্পেকট্রাম দিয়েই অপারেটরা গ্রাহকদের সন্তুষ্টির কাছাকাছি চলে যেতে পারবে। ‘সন্তুষ্টির কাছাকাছি’ বলছি এ কারণে যে, সন্তুষ্টির তো কোনো সীমা-পরিসীমা নেই!
৫।আরো একটি বিষয় হলো ফোরজি চালু হলে যারা ফোরজি ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন তারা মূলত বড় ভলিউমের ইন্টারনেটই ব্যবহার করবেন। এতোদিন তারা থ্রিজি ব্যবহার করতেন। তারা থ্রিজি থেকে ফোরজিতে চলে আসলে থ্রিজি’র স্পেকট্রামের ওপর চাপ কমবে এবং যেখানে ফোরজি নেটওয়ার্ক থাকবে না সেখানে থ্রিজি পরিস্থিতিও আগের চেয়ে ভালো হবে।
৬।দেশে থ্রিজি চালু হওয়ার শুরুর দিকে মোবাইল ইন্টারনেটের সংযোগে প্রতি মাসে ডেটার ব্যবহার ছিলো ৯০ এমবি। আর এখন সেটি সাড়ে ছয়শ এমবি! পাঁচ বছরে ডেটা ব্যবহারের হার শুধু মোবাইল ফোনেই বেড়েছে সাতগুণ। ফোরজি যুগের সাত বছরে এটি আরো সাত থেকে দশগুণ পর্যন্ত বাড়বে বলে ধারণা করা যেতে পারে।

বাংলাদেশে ফোরজি’র দুটি বড় চ্যালেঞ্জ:
প্রথম চ্যালেঞ্জ- হ্যান্ডসেট। দেশে যতো হ্যান্ডসেট ব্যবহার হচ্ছে তার মাত্র দশ শতাংশের মতো সেটে ফোরজি সেবা গ্রহণ করা সম্ভব। গ্রামীণফোনের সিইও গত সোমবার দাবি করেছেন তাদের গ্রাহকদের ১৪ শতাংশের হাতে ফোরজি সেট রয়েছে।
দ্বিতীয় চ্যালেঞ্জ হলো- ডাটা পরিবহনের জন্যে অপারেটররা মূলত ফাইবার অপটিক ক্যাবলই ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু আইনগত বাধ্যবাধকতায় তারা নিজেরা ফাইবার অপটিক ক্যাবল বসাতে পারেন না। এবং দেশে ফাইবার নেটওয়ার্কও যথেষ্ট শক্তিশালী নয়।

প্রবাদ আছে ‘ নামেই গগণ ফাটে” অর্থাৎ নামের মাধ্যমেই কার্যসিদ্ধি । থ্রিজির প্রকৃত সুবিধা না ফেলেও থ্রি জি আমাদের জীবনকে অনেক সহজ করে দিয়েছে । আপনার ডিভাইসে কয়েকটি বাটনে চাপ দিলেই বাসার গেটে গাড়ি এসে হাজির হবে? বা অর্ডার করলেই খাবার হাতে দরজার সামনে এসে দাঁড়িয়ে যাবেন কেউ? ড্রাইভার, মিস্ত্রি- কী লাগবে? সব পাবেন এখন অনলাইনে। গোটা ইকোসিস্টেমে এমন হাজার রকমের সেবা যুক্ত হয়ে যাবে ফোরজি’র ছোঁয়ায়।
কিন্তু, সবকিছুর ওপর যেটি লাগবে সেটি হলো- সেবার গাড়িটিকে তার গতিতে চলতে দেওয়ার সুযোগ। সরকার চাইলেই ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে দেবে বা নেটওয়ার্ক বন্ধ করে দেবে তাহলে কিন্তু ফোরজি ওয়ানজিতে নামতেও সময় লাগবে না।

:
ইন্টারনেট থেকে সম্পাদিত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*